শনিবার, ১৭ এপ্রিল ২০২১, ০২:৫৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
শিরোনাম :
ঝিকরগাছায় কৃষিতে উৎপাদন বাড়িয়ে দেশকে এগিয়ে নিতে কৃষকের অভাবনীয় সাফল্য -উপপরিচালক মনিরামপুরে এসএম ইয়াকুব আলীর পক্ষে কম্বল বিতরণ শোক সংবাদ, শোক সংবাদ শোক সংবাদ, শোক সংবাদ সকল মান-অভিমান ভূলে নৌকাকে বিজয়ী করতে হবে – জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি-মিলন বাসায় ফিরেছেন প্রিয় নেতা ভাসানচর থানা উদ্বোধন করলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কুষ্টিয়া নাগরিক কমিটি গঠন: সভাপতি ডাঃ মুসতানজিদ। সাধা: সম্পাদক ড. সেলিম তোহা। যুগ্ম সাধা: সম্পাদক সামসুল ওয়াসে সন্ত্রাসী মোস্তাকের টার্গেট নিরীহ মানুষ ও ব্যবসায়ীদের। প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা। ঝিকরগাছার গদখালি ফুলের রাজধানীতে করোনাকালীন সময়ে হচ্ছে না ফুল বিক্রি : চলতি বছরে থাকছে না কোন টার্গেট
ঘোষণা :
নিউজ আর এস এ আপনাকে স্বাগতম  

বেপরোয়া হয়ে উঠছেন পাংশা উপজেলা চেয়ারম্যান”

Reporter Name / ১০৪ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : শনিবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০২০, ৯:৪০ পূর্বাহ্ন

ফরিদপুর প্রতিনিধিঃ
পাংশা উপজেলা চেয়ারম্যান ফরিদ হাসান ওদুদ। আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে গত উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান হন। দলের সিদ্ধান্তের বাইরে নির্বাচন করা থেকে শুরু করে, জমি দখল ও উপজেলায় দলীয় (ক্রন্দল) সৃষ্টির বিস্তর অভিযোগ রয়েছে পাংশার এই উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে।

গত ৯ ডিসেম্বর বিকেলে ভাস্কর্য ভাঙার প্রতিবাদে পাংশা উপজেলা আওয়ামী লীগের বিক্ষোভ কর্মসূচীতে তার ইন্ধনে/তার কর্মীরা বর্তমান উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডা. এএফএম শফিউদ্দিন পাতাসহ তিনজনকে মারধর করেন বলে অভিযোগ ওঠে। মারধরের ওই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম সহ বিভিন্ন গণমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। ওই রাতেই পাংশা থানায় উপজেলা চেয়ারম্যানকে আসামী করে মামলা দায়ের করা হয়। এ ঘটনার সুষ্ঠু বিচার দাবি করেন মারধরের শিকার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডা. এএফএম শফিউদ্দিন পাতা।
উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি একেএম শফিকুল মোর্শেদ আরুজ সেসময় বলেন, বিক্ষোভ সমাবেশে হামলার ঘটনা উপজেলা চেয়ারম্যান ফরিদ হাসান ওদুদের পূর্বপরিকল্পিত।
অন্যদিকে এ ঘটনায় মারধরের শিকার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডা. শফিউদ্দিন পাতাকেই প্রধান আসামী করে পালটা মামলা দায়ের করেন উপজেলা চেয়ারম্যান। যা নিয়ে উপজেলার নেতাকর্মীসহ সাধারণ মানুষও জানান লজ্জা ও ঘৃণার কথা।

এর আগে গত ৪ ডিসেম্বর রাতে পাংশাতে সরকারি জায়গা দখলের চেষ্টার অভিযোগ উঠে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফরিদ হাসান ওদুদের বিরুদ্ধে।
জানা যায়, পাংশা মাছ বাজার সংলগ্ন উপজেলা পরিষদ তাদের নিজস্ব জায়গায় টিনশেডের তৈরি ৩৫টি দোকান ঘর নির্মাণ করেন। কিন্তু টিনশেডের উপরের ছাউনি এখনো দেওয়া হয়নি। দীর্ঘদিন ঐভাবেই পড়ে আছে।
কিন্তু হঠাৎ করে ৪ ডিসেম্বর রাত সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলা চেয়ারম্যান ফরিদ হাসান ওদুদ জায়গাটি দখলে নেওয়ার জন্য তার নিজস্ব দোকানের সবজি বিক্রেতাদেরকে তাড়াহুড়া করে উপজেলা পরিষদের নির্মিত টিনশেড ঘরে তুলে দেওয়ার চেষ্টা করেন। পরে বিষয়টি জানতে পেরে তাৎক্ষণিকভাবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান, পাংশা পৌরসভার মেয়র, সহকারী কমিশনার (ভূমি), থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) ওই রাতেই ঘটনাস্থলে ছুটে গিয়ে অবৈধ দখল থেকে জায়গাটি মুক্ত করে।

উপজেলা পরিষদের ভাইস-চেয়ারম্যান মো: জালাল উদ্দিন বিশ্বাস বলেন, উপজেলা চেয়ারম্যান সরকারি জায়গাটি দখলে নেওয়ার জন্য গভীর রাতে ভাড়াটিয়া বসিয়ে দিচ্ছিলেন। যা সম্পূর্ণ অবৈধ এবং লজ্জাজনক।

পাংশা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বিপুল চন্দ্র জানান, শুক্রবার রাতে ফোনে খবর পাই যে সরকারি জমি দখলে নিচ্ছেন উপজেলা চেয়ারম্যান। খবর পেয়েই তাৎক্ষনিকভাবে ঘটনাস্থলে ছুটে যাই। পাংশা থানার ওসি, ভাইসচেয়ারম্যান, সহকারি কমিশনারের উপস্থিতিতে অভিযোগের সত্যতা মিললে তা বন্ধ করে দেওয়া হয়।

এর আগে গত ২০১৮ সালে পাংশা উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে উপজেলা পরিষদের জমি অবৈধভাবে দখল, নানাবিধ অনিয়ম-দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ ওঠে। এছাড়াও তার বিরুদ্ধে এলডিপি প্রকল্পে দুর্নীতিসহ মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ করেন বেশ কয়েকজন ভুক্তভোগী।

ঢাকা বিভাগীয় কমিশনার সেসময় তদন্ত করেন বিষয়টি। বিভাগীয় কমিশনার সরেজমিনে পাংশা উপজেলা চেয়ারম্যান ফরিদ হাসান ওদুদ কর্তৃক পাংশা বাজারে উপজেলা পরিষদের জমিতে অবৈধভাবে নির্মিত শেড ও দোকান পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনকালে তিনি বাজারের ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলেন।

সেসময় স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব বরাবর ভাইস চেয়ারম্যানের দাখিলকৃত অভিযোগে উল্লেখ করা হয়, “পাংশা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান উপজেলা পরিষদ রাজস্ব তহবিল ব্যবহার নির্দেশিকা/২০১৪ অনুসরণ না করে বিধি বহির্ভুতভাবে উপজেলা পরিষদের তহবিল ব্যবহার করে সরকারী জমিতে বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণসহ নানা অনিয়ম, দুর্নীতি ও স্বজনপ্রীতি করে যাচ্ছেন। সাধারণত উপজেলা পরিষদের জমিতে কোন স্থাপনা নির্মাণ করতে হলে মন্ত্রণালয়ের অনুমতির প্রয়োজন হয় এবং জেলা প্রশাসকের অনুমোদনসহ উপজেলা পরিষদের সভায় চূড়ান্ত অনুমোদন নিতে হয়। কিন্তু বর্তমান চেয়ারম্যান ফরিদ হাসান ওদুদ এ সকল প্রক্রিয়া অনুসরণ না করে পাংশা বাজারে পরিষদের জমিতে শেড, দোকান ঘর নির্মাণ করে অবৈধভাবে বরাদ্দের বিনিময়ে লক্ষ লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করেছেন। বিষয়টি উপজেলা পরিষদের গোচরীভূত হলে মাসিক সভায় দোকান বরাদ্দ বিষয়ে তদন্তের জন্য ৫সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয় এবং অবৈধ স্থাপনার সকল কাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়। তিনি উপজেলা পরিষদের জায়গায় নিয়ম বহির্ভুতভাবে ১৩টি দোকান নিজের আপন ভাই, চাচাতো ভাই, আত্মীয়-স্বজন ও উপজেলা পরিষদের কর্মচারীদের মধ্যে বরাদ্দ প্রদান করে মোটা অঙ্কের টাকা হাতিয়ে নেন। যা উপজেলা পরিষদের সম্পত্তি অস্থায়ী ভিত্তিতে হস্তান্তর বিধিমালা ২০০৬/২৪ আইন এর পরিপন্থী”।

চলতি বছর ১৯ এপ্রিল ফরিদ হাসান ওদুদ মন্ডলের ছোট ভাই পাংশা উপজেলার যশাই ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান মন্ডলের গুদাম থেকে ইউএনও’র উপস্থিতিতে সরকারি চাল ও পাটের বীজ জব্দ করে পুলিশ। এ ঘটনায় ওই গুদামে অবস্থান করা আব্দুর রাজ্জাককে আটক করা হয়। পরবর্তীতে পুলিশ বাদি হয়ে পাংশা থানায় চেয়ারম্যান সিদ্দিকুর রহমান মন্ডল ও আব্দুর রাজ্জাকের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করা হয়। এরপর সিদ্দিকুর রহমান মন্ডলকে সাময়িক বরখাস্ত করে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়।

এছাড়াও দলের সিদ্ধান্তের বাইরে নির্বাচন করা থেকে শুরু করে দলীয় বিভক্তি সৃষ্টির বিস্তর অভিযোগ রয়েছে পাংশার এই উপজেলা চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে। স্থানীয় নেতাকর্মীদের মতে “দিন দিন আরও বেপরোয়া হয়ে উঠছেন পাংশা উপজেলা চেয়ারম্যান ফরিদ হাসান ওদুদ”।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

কুষ্টিয়ায় আরো এক পান্না মাষ্টারের সন্ধান..! লম্পট রাজুর বিরুদ্ধে একাধিক ছাত্রীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ প্রতিবাদ করায় ছাত্রীকে হুমকি, নিরাপত্তাহীনতা ও বিচার চেয়ে থানায় এজাহার দায়ের সোহেল রানা কুষ্টিয়া : কুষ্টিয়ায় এক লম্পটের বিরুদ্ধে ছাত্রীকে শ্লীলতাহানি ও কু-প্রস্তাবের অভিযোগ উঠেছে । ভুক্তভোগী ওই ছাত্রীকে বিভিন্ন মাধ্যমে হুমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করেছে ওই লম্পট। জানা যায়, কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার গোয়ালগ্রাম মধুগাড়ী এলাকার আরজ উল্লাহ’র ছেলে রাজু আহাম্মেদ যার বর্তমান ঠিকানা কুষ্টিয়া শহরের কাটাইখানা মোড়ের একটি বেসরকারি নার্সিং ইনস্টিটিউটের কোর্স সমন্বয়কারী। অত্র ইনস্টিটিউটের ২য় বর্ষের এক ছাত্রীর সাথে পরিচয় হয় তার। পরিচয়ের পর একপর্যায়ে ওই ছাত্রীকে বিভিন্ন ভাবে কু-প্রস্তাব দেয় লম্পট রাজু। কিন্তু ওই ছাত্রী তার কু-প্রস্তাবে সাড়া না দেওয়ায় রাজু ওই ছাত্রীর ওড়না ধরে টানাটানি, শরীরে বিভিন্ন স্থানে হাত দেওয়া সহ বিভিন্ন ভাবে দীর্ঘদিন ধরে উত্যক্ত করে আসছিল রাজু। বিষয়টি কাউকে জানালে ওই ছাত্রীকে পরীক্ষায় ফেল করিয়ে দেওয়ার হুমকি দেয় ওই লম্পট। ভীত ওই ছাত্রী জানায়, লম্পট রাজু জোরপূর্বক ভাবে ধর্ষণের চেষ্টা করে। এব্যাপারে ওই ছাত্রী নিরাপত্তাহীনতা ও বিচারের দাবী করে কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি এজাহার দায়ের করেছেন।একাধিক সূত্র জানায়, এরকম আরো কয়েকজন শিক্ষার্থীদের ভয়ভীতি দিয়ে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ার চেষ্টা করে লম্পট রাজু। তার ফাঁদে পড়ে অনেকেই সর্বঃস্ব হারিয়েছে বলে সূত্র জানিয়েছে। ওই ছাত্রীর এজাহারের ভিত্তিতে কুষ্টিয়া মডেল থানার ওসি গোলাম মোস্তফার নির্দেশে ওসি তদন্ত অভিযোগকারী ওই ছাত্রীসহ ভুক্তভোগীদের জিজ্ঞাসাবাদ করে। পরবর্তীতে কুষ্টিয়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ গোলাম মোস্তফা বাদী ও ভুক্তভোগীদের জিজ্ঞাসাবাদ করে সত্যতা পায়। তিনি জানান, নারী নির্যাতনকারী অপরাধী যেই হোক তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অতিদ্রুত অভিযুক্তের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এক ক্লিকে বিভাগের খবর