বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ০১:৩৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
শিরোনাম :
হাফেজা হলেন সৈয়দা রাশিদা বেগম এমপির নাতনি আদিবা আয়েশা সোহা। নিজের অপকর্ম ঢাকতে নিজ প্রতিষ্ঠানে কর্মরত ৬শিক্ষক-শিক্ষিকার বিরুদ্ধে জঙ্গীবাদ ও ধর্ষণচেষ্টার মিথ্যা অভিযোগ আদিবা আয়েশা বাংলাদেশ যুব ছায়া সংসদের সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। সাংবাদিকের মোঃ শামীম আসরাফের উপর সন্ত্রাসী হামলা কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে ২০ টাকায় সরকারি চাকুরী পেলেন ওরা ১৬ জন ইঞ্জিনিয়ার্স ফাউন্ডেশন দৌলতপুর (ইএফডি) এর পূনাঙ্গ উপ-কমিটি প্রকাশ করা হয়েছে। ড্রীম ইন্টেরিয়র ডিজাইনের নাম পরিবর্তন করে, চাঁদ ইন্টেরিয়র ডেকোরেশন নামকরণ করা হয়েছে। গ্রেনেড হামলাঃ কুষ্টিয়ায় ছাত্রলীগ নেতা চ্যালেঞ্জ এর উদ্যোগে দোয়া মাহফিল ওহিদুল ইসলাম বাদল এর সহযোগীতায় এবং শাইখ আল জাহান শুভ্র এর তত্ত্বাবধানে মিলাদ মাহফিল আয়োজন। দৌলতপুরে অধ্যক্ষ ও সাংবাদিকের নামে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবীতে মানববন্ধন
ঘোষণা :
নিউজ আর এস এ আপনাকে স্বাগতম  

এবার ফাঁস হলো দৌলতপুর উপজেলার আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ফিলিপনগর মরিচা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ ফোনালাপ (অডিও)

Reporter Name / ৩০ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২৯ অক্টোবর ২০২০, ০১:৩৯ পূর্বাহ্ন

এবার ফাঁস হলো দৌলতপুর উপজেলার আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ফিলিপনগর মরিচা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ ফোনালাপ (অডিও)


এবার ফাঁস হলো দৌলতপুর উপজেলার আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও ফিলিপনগর মরিচা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ ফোনালাপ (অডিও)এবার ফাঁস হলো দৌলতপুর উপজেলার আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট শরীফ উদ্দিন রিমন ও ফিলিপনগর মরিচা ডিগ্রি কলেজের অধ্যক্ষ আব্দুল মান্নানের ফোনালাপ (অডিও)

কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার ফিলিপনগর মরিচা ডিগ্রি কলেজের সভাপতির গোমড় ফাঁস করে দিয়েছেন কলেজটির অধ্যক্ষ। ওই কলেজে গত ১০ বছর ধরে সভাপতির দায়িত্ব পালন করে আসছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগের প্রভাবশালী নেতা অ্যাডভোকেট শরীফ উদ্দিন রিমন। ঈদুল আজহায় সভাপতির অসহযোগিতাপূর্ণ আচরণে কলেজটির শিক্ষক-কর্মচারীরা উৎসব ভাতা না পাওয়াকে কেন্দ্র করে উঠে এসেছে সভাপতি শরীফ উদ্দিন রিমনকে নিয়ে নানা অনিয়মের অভিযোগ।

ঈদের আগে উৎসব ভাতা তোলার জন্য সভাপতির কাছে স্বাক্ষর চাওয়া হলে তিনি অসংলগ্ন কথাবার্তা বলেছেন উল্লেখ করে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজ পরিদর্শক বরাবর একটি চিঠিও পাঠিয়েছেন পিএম কলেজ নামে পরিচিত দৌলতপুরের এই কলেজটির অধ্যক্ষ আব্দুল মান্নান। চিঠিতে একই সঙ্গে সভাপতির অনিয়ম দুর্নীতির গোমড় ফাঁস করে দিয়েছেন তিনি।

ওই চিঠিতে সভাপতি কর্তৃক দেড় কোটি টাকা নিয়োগ বাণিজ্যসহ কলেজ কেন্দ্রীক নানা অনৈতিক বাণিজ্যের কথা উল্লেখ করা হয়েছে। এ ছাড়া রাজনৈতিক ক্ষমতার দাপটে বিভিন্ন সময়ে কলেজের বিভিন্নজনের সাথে অশালীন আচরণ ও হুমকি ধামকি দেয়ার কথাও উল্লেখ করা হয়েছে অধ্যক্ষ স্বাক্ষরিত ওই চিঠির বর্ণনায়। চিঠিতে স্বাক্ষর সংযুক্তি করা হয়েছে কলেজের ৫৮ জন স্টাফের।

কলেজটির সহকারী অধ্যক্ষ আব্দুস সালাম, তথ্য প্রযুক্তি বিভাগের পরিদর্শক শফিউল ইসলামসহ আরো কয়েকজন কলেজ পরিচালনা কমিটির সভাপতি অ্যাডভোকেট শরীফ উদ্দিন রিমনের অসহযোগিতার কারণে উৎসব ভাতা না পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। ঈদে উৎসব ভাতা না পাওয়ার ঘটনায় কলেজের শিক্ষক-কর্মচারীদের মাঝে চরম ক্ষোভ ও অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। তারা সভাপতির বিরুদ্ধে ফুঁসে উঠেছেন। সভাপতি শহরে থাকেন, কলেজের কোনো খোঁজখবরও রাখেন না মন্তব্য করে কলেজ কর্মচারী মিজানুর রহমান সভাপতি শরীফ উদ্দিন রিমনের প্রশ্নবিদ্ধ আচরণের বিবরণ দেন।

এদিকে অধ্যক্ষ আব্দুল মান্নানের সাথে সম্প্রতি ফোনআলাপের একপর্যায়ে সভাপতি শরীফ উদ্দিন রিমন অধ্যক্ষকে উলঙ্গ করে সপ্তাহে একবার করে পেটানোর হুমকি দিয়েছেন। ওই ফোনালাপের অডিও রেকর্ডে খবরে ব্যবহার যোগ্য নয় এমন ভাষা ব্যবহার করতে শোনা যায় সভাপতিকে। তবে সুস্পষ্ট হুমকির পরেও এ বিষয়ে আইনের আশ্রয় না নেয়া প্রসঙ্গে অধ্যক্ষ আব্দুল মান্নান জানান, সভাপতি রাজনৈতিকভাবে ক্ষমতাধর হওয়ায় আইনের আশ্রয় নেয়া যাচ্ছে না। ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের দিকে তাকিয়ে আছেন তারা।

আগামী ২৬ সেপ্টেম্বর পিএম কলেজের বর্তমান কমিটির মেয়াদ শেষ হতে যাচ্ছে। এর আগেই সভাপতিকে প্রত্যাহার ও তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণের উদ্যোগ নিতে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন জানিয়েছেন অধ্যক্ষ। আর এ তথ্য গণমাধ্যমকে নিশ্চিত করেছেন অধ্যক্ষ নিজেই।

টানা তিন মেয়াদে কলেজটির পরিচালনা পর্ষদের সভাপতির দায়িত্বে থাকা অ্যাডভোকেট শরীফ উদ্দিন রিমন দৌলতপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক। খোদ দলের নেতাকর্মীদের মাঝেও তাকে নিয়ে নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া রয়েছে। কলেজ সভাপতির দায়িত্বে থেকে নানা অনিয়মে জড়িয়ে পড়ার অভিযোগ প্রসঙ্গে তার বক্তব্য নেয়ার জন্য দফায় দফায় মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তাকে পাওয়া যায়নি।

আড়াই দশক আগে ১৯৯৪ সালে প্রতিষ্ঠিত ফিলিপনগর মরিচা ডিগ্রি কলেজে নিয়োগ বাণিজ্যের জনশ্রুতি বেশ পুরনো। বর্তমান অধ্যক্ষ আব্দুল মান্নানও শরীফ উদ্দিন রিমনের সুসম্পর্কের ব্যক্তি ছিলেন, এমনকি তার নিয়োগেও এই সভাপতির বিশেষ অবদানের কথা ছড়িয়ে আছে সংশ্লিষ্টদের মধ্যে। তবে সভাপতির অনিয়ম অসহনীয় মাত্রায় পৌঁছানোয় এসব নিয়ে এখন অনেকে মুখ খুলতে শুরু করেছেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

কুষ্টিয়ায় আরো এক পান্না মাষ্টারের সন্ধান..! লম্পট রাজুর বিরুদ্ধে একাধিক ছাত্রীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ প্রতিবাদ করায় ছাত্রীকে হুমকি, নিরাপত্তাহীনতা ও বিচার চেয়ে থানায় এজাহার দায়ের সোহেল রানা কুষ্টিয়া : কুষ্টিয়ায় এক লম্পটের বিরুদ্ধে ছাত্রীকে শ্লীলতাহানি ও কু-প্রস্তাবের অভিযোগ উঠেছে । ভুক্তভোগী ওই ছাত্রীকে বিভিন্ন মাধ্যমে হুমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করেছে ওই লম্পট। জানা যায়, কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার গোয়ালগ্রাম মধুগাড়ী এলাকার আরজ উল্লাহ’র ছেলে রাজু আহাম্মেদ যার বর্তমান ঠিকানা কুষ্টিয়া শহরের কাটাইখানা মোড়ের একটি বেসরকারি নার্সিং ইনস্টিটিউটের কোর্স সমন্বয়কারী। অত্র ইনস্টিটিউটের ২য় বর্ষের এক ছাত্রীর সাথে পরিচয় হয় তার। পরিচয়ের পর একপর্যায়ে ওই ছাত্রীকে বিভিন্ন ভাবে কু-প্রস্তাব দেয় লম্পট রাজু। কিন্তু ওই ছাত্রী তার কু-প্রস্তাবে সাড়া না দেওয়ায় রাজু ওই ছাত্রীর ওড়না ধরে টানাটানি, শরীরে বিভিন্ন স্থানে হাত দেওয়া সহ বিভিন্ন ভাবে দীর্ঘদিন ধরে উত্যক্ত করে আসছিল রাজু। বিষয়টি কাউকে জানালে ওই ছাত্রীকে পরীক্ষায় ফেল করিয়ে দেওয়ার হুমকি দেয় ওই লম্পট। ভীত ওই ছাত্রী জানায়, লম্পট রাজু জোরপূর্বক ভাবে ধর্ষণের চেষ্টা করে। এব্যাপারে ওই ছাত্রী নিরাপত্তাহীনতা ও বিচারের দাবী করে কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি এজাহার দায়ের করেছেন।একাধিক সূত্র জানায়, এরকম আরো কয়েকজন শিক্ষার্থীদের ভয়ভীতি দিয়ে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ার চেষ্টা করে লম্পট রাজু। তার ফাঁদে পড়ে অনেকেই সর্বঃস্ব হারিয়েছে বলে সূত্র জানিয়েছে। ওই ছাত্রীর এজাহারের ভিত্তিতে কুষ্টিয়া মডেল থানার ওসি গোলাম মোস্তফার নির্দেশে ওসি তদন্ত অভিযোগকারী ওই ছাত্রীসহ ভুক্তভোগীদের জিজ্ঞাসাবাদ করে। পরবর্তীতে কুষ্টিয়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ গোলাম মোস্তফা বাদী ও ভুক্তভোগীদের জিজ্ঞাসাবাদ করে সত্যতা পায়। তিনি জানান, নারী নির্যাতনকারী অপরাধী যেই হোক তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অতিদ্রুত অভিযুক্তের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এক ক্লিকে বিভাগের খবর