শুক্রবার, ২৩ এপ্রিল ২০২১, ১২:০৫ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম :
শিরোনাম :
ঝিকরগাছায় কৃষিতে উৎপাদন বাড়িয়ে দেশকে এগিয়ে নিতে কৃষকের অভাবনীয় সাফল্য -উপপরিচালক মনিরামপুরে এসএম ইয়াকুব আলীর পক্ষে কম্বল বিতরণ শোক সংবাদ, শোক সংবাদ শোক সংবাদ, শোক সংবাদ সকল মান-অভিমান ভূলে নৌকাকে বিজয়ী করতে হবে – জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি-মিলন বাসায় ফিরেছেন প্রিয় নেতা ভাসানচর থানা উদ্বোধন করলেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী কুষ্টিয়া নাগরিক কমিটি গঠন: সভাপতি ডাঃ মুসতানজিদ। সাধা: সম্পাদক ড. সেলিম তোহা। যুগ্ম সাধা: সম্পাদক সামসুল ওয়াসে সন্ত্রাসী মোস্তাকের টার্গেট নিরীহ মানুষ ও ব্যবসায়ীদের। প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা। ঝিকরগাছার গদখালি ফুলের রাজধানীতে করোনাকালীন সময়ে হচ্ছে না ফুল বিক্রি : চলতি বছরে থাকছে না কোন টার্গেট
ঘোষণা :
নিউজ আর এস এ আপনাকে স্বাগতম  

বিধর্মী হয়ে ইসলাম ধর্মের পরিচয় শিক্ষককে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর চেষ্টা

Reporter Name / ৭৮ বার নিউজটি পড়া হয়েছে
আপডেট টাইম : শনিবার, ২ জানুয়ারী, ২০২১, ২:৪৫ অপরাহ্ন

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ

হিন্দু হইয়া মুসলিম পরিচয় দেয়! সম্প্রতি রাজধানীর খিলগাঁও এলাকায় এক শিক্ষককে মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর চেষ্টা চলছে। ঐ শিক্ষককে যৌন হয়রানীর মামলা দিয়ে তার সামাজিক মর্যাদা হেয় প্রতিপন্ন করা হচ্ছে। প্রায় ১০ বছরের বেশি সময় ধরে শিক্ষকতা করছেন। ৪ বছর ধরে পড়াচ্ছেন একটি কলেজেও। নিজে একাধিক বিষয়ের উপর করেছেন স্নাতকোত্তর। তিনি একজন সনাতন ধর্মালম্বি বাংলাদেশি নাগরিক। এলাকার সবাই তাকে সুমন স্যার নামেই চেনে।

গত ২১শে অক্টোবর হঠাৎ তাকে ফোনে ডেকে এনে খিলগাঁও থানার সামনে কতিপয় ছেলে মারধর করে এবং থানায় জোরপূর্বক সোপর্দ করে পুলিশি সহায়তায়। মারধরের কারণ ও থানায় নিয়ে যাওয়ায় তিনি তার নিজের বিরুদ্ধে অভিযোগ জানতে চেয়েও জানতে পারেননি। পরে জানা যায়, তার এক সাবেক অসম্পূর্ন নামের শিক্ষার্থী এবং মিথ্যা কলেজের পরিচয় দিয়ে তার বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ এনে খিলগাঁও থানায় মামলা করেন। অভিযোগে বলা হয়েছে যে, শিক্ষক নিজেকে মুসলমান হিসেবে পরিচয় দিয়ে প্রেমের প্রস্তাব দেয়। বাদী এতে রাজী না হলে বিবাদী শিক্ষক যৌন নিপীড়ন করে। কিন্তু পরবর্তীতে ভিডিও ফুটেজ এবং সাক্ষ্য প্রমানের ভিত্তিতে দেখা যায় বিবাদী এজাহারে উল্লিখিত সময়ে উক্ত ঘটনাস্থলে উপস্থিত ছিলেন না। মিথ্যা মামলায় ১১ দিন কারাবাসের পর তিনি জামিনে মুক্ত হন।

বিবাদীর সাথে কথা বললে তিনি জানান যে, জামিনে বের হয়ে আসার পর থেকে বাদী পক্ষ বিভিন্ন ভাবে হুমকি দিচ্ছে, বাসায় লোক পাঠাচ্ছে। বাঁচতে দেবেনা এবং আরো মামলা দিবে বলেও ভয় দেখায়। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা আরিফুল ইসলাম নিজেকে বাদীর লোক বলে দাবী করছে এবং বিবাদীর দেয়া তথ্য প্রমাণ নিতে অস্বীকৃতি জানায়। থানায় জিডি করতে গেলে মারধরের বিষয়টি জিডিতে উল্লেখ করতে দেয়া হয়নি। মামলার এজাহার সম্পর্কে সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী হারুন বলেন, এজাহারে বাদীর নাম অসম্পুর্ন এবং নামের সাথে স্বাক্ষরের মিল নেই যা মামলাটির গ্রহণযোগ্যতা নষ্ট করেছে।

বাদীর কয়েকজন সহপাঠীর সাথে কথা বলে জানা যায়, বিবাদী কখনোই নিজের ধর্মীয় পরিচয় গোপন করেননি কিন্ত বাদী নিজে বিবাদীকে পছন্দ করত যা জানতে পেরে বিবাদী সাথে সাথে বাদীকে পড়ানো ছেড়ে দেয়। পরে মেসেঞ্জারে বাদীর ইঙ্গিতপূর্ন কথা বুঝতে পেরে বিবাদী তার সকল শিক্ষার্থীকে তিনি সন্তানের মত দেখেন বলে জানায়। যেহেতু এজাহারে বলা হয়েছে হিন্দু হইয়া মুসলিম পরিচয় দেয় যা ধর্মীয় সহিংসতার জন্য উস্কানিমূলক।

এজাহারে উল্লিখিত ঘটনাস্থলে গেলে বাড়ীর মালিক জানান যে, তার বাড়িতে এমন কোন ঘটনা ঘটেনি এবং বাদীকে তিনি কখনো দেখেননি। এমতাবস্থায় বিবাদী তদন্তের নিরপেক্ষতা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করছেন। তিনি আরো জানান প্রয়োজনে তিনি মানবাধিকার কমিশনে, হিন্দু-বৌদ্ধ-খৃস্টান ঐক্য পরিষদে এবং ডিসির কাছে সঠিক ও নিরপেক্ষ তদন্তের জন্য আবেদন জানাবেন।


আপনার মতামত লিখুন :

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর ....

কুষ্টিয়ায় আরো এক পান্না মাষ্টারের সন্ধান..! লম্পট রাজুর বিরুদ্ধে একাধিক ছাত্রীকে শ্লীলতাহানির অভিযোগ প্রতিবাদ করায় ছাত্রীকে হুমকি, নিরাপত্তাহীনতা ও বিচার চেয়ে থানায় এজাহার দায়ের সোহেল রানা কুষ্টিয়া : কুষ্টিয়ায় এক লম্পটের বিরুদ্ধে ছাত্রীকে শ্লীলতাহানি ও কু-প্রস্তাবের অভিযোগ উঠেছে । ভুক্তভোগী ওই ছাত্রীকে বিভিন্ন মাধ্যমে হুমকি ও ভয়ভীতি প্রদর্শন করেছে ওই লম্পট। জানা যায়, কুষ্টিয়ার দৌলতপুর উপজেলার গোয়ালগ্রাম মধুগাড়ী এলাকার আরজ উল্লাহ’র ছেলে রাজু আহাম্মেদ যার বর্তমান ঠিকানা কুষ্টিয়া শহরের কাটাইখানা মোড়ের একটি বেসরকারি নার্সিং ইনস্টিটিউটের কোর্স সমন্বয়কারী। অত্র ইনস্টিটিউটের ২য় বর্ষের এক ছাত্রীর সাথে পরিচয় হয় তার। পরিচয়ের পর একপর্যায়ে ওই ছাত্রীকে বিভিন্ন ভাবে কু-প্রস্তাব দেয় লম্পট রাজু। কিন্তু ওই ছাত্রী তার কু-প্রস্তাবে সাড়া না দেওয়ায় রাজু ওই ছাত্রীর ওড়না ধরে টানাটানি, শরীরে বিভিন্ন স্থানে হাত দেওয়া সহ বিভিন্ন ভাবে দীর্ঘদিন ধরে উত্যক্ত করে আসছিল রাজু। বিষয়টি কাউকে জানালে ওই ছাত্রীকে পরীক্ষায় ফেল করিয়ে দেওয়ার হুমকি দেয় ওই লম্পট। ভীত ওই ছাত্রী জানায়, লম্পট রাজু জোরপূর্বক ভাবে ধর্ষণের চেষ্টা করে। এব্যাপারে ওই ছাত্রী নিরাপত্তাহীনতা ও বিচারের দাবী করে কুষ্টিয়া মডেল থানায় একটি এজাহার দায়ের করেছেন।একাধিক সূত্র জানায়, এরকম আরো কয়েকজন শিক্ষার্থীদের ভয়ভীতি দিয়ে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ার চেষ্টা করে লম্পট রাজু। তার ফাঁদে পড়ে অনেকেই সর্বঃস্ব হারিয়েছে বলে সূত্র জানিয়েছে। ওই ছাত্রীর এজাহারের ভিত্তিতে কুষ্টিয়া মডেল থানার ওসি গোলাম মোস্তফার নির্দেশে ওসি তদন্ত অভিযোগকারী ওই ছাত্রীসহ ভুক্তভোগীদের জিজ্ঞাসাবাদ করে। পরবর্তীতে কুষ্টিয়া মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ গোলাম মোস্তফা বাদী ও ভুক্তভোগীদের জিজ্ঞাসাবাদ করে সত্যতা পায়। তিনি জানান, নারী নির্যাতনকারী অপরাধী যেই হোক তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। অতিদ্রুত অভিযুক্তের বিরুদ্ধে কঠোর আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এক ক্লিকে বিভাগের খবর